১৯ মিনিট আগের আপডেট; রাত ৬:১১; রবিবার ; ১৩ জুন ২০২১

দিব্যা ভারতীর সেই রহস্য ২৮ বছরেও উদঘাটিত হয়নি

অনলাইন ডেস্ক ০৫ এপ্রিল ২০২১, ২২:৩৭

২৮ বছর আগের কথা।   ১৯৯৩ সালের ৫ এপ্রিল।  ভারতের মুম্বাইয়ের ৫ তলা বিল্ডিং থেকে পড়ে মারা যান অভিনেত্রী দিব্যা ভারতী।তখন দিব্যার বয়স মাত্র ১৯ বছর। এত অল্প বয়সে প্রতিভাবান অভিনেত্রীর চলে যাওয়া কেউই মেনে নিতে পারেননি।  দিব্যার মৃত্যুর পর কেটে গিয়েছে ২৮টা বছর দিব্যার মৃত্যু আত্মহত্যা, নাকি খুন, না নেহাতই দুর্ঘটনা! সে রহস্য আজও রহস্যই রয়ে গিয়েছে।

আজ দিব্যার ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী।  প্রতিবারই দিব্যার অনুরাগীদের মনে মৃত্যু নিয়ে ফিরে আসে নানান প্রশ্ন।  এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জিনিউজ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অনেকেই মনে করেন, ওই দিব্যার মৃত্যু ছিল নেহাতই দুর্ঘটনা। কেউ দাবি করেছিলেন, ইসলাম গ্রহনের পর অভিনেত্রী দিব্যা খুন হয়েছিলেন।

অনেকের দাবি, মায়ের সঙ্গে মনোমালিন্যের জন্যই আত্মহত্যা করেছিলেন দিব্যা।  তবে সত্যটা আজও জানা যায়নি।  তবে তার ডেথ সার্টিফিকেটে অস্বাভাবিক মৃত্যুর কথাই বলা হয়েছে।

স্টারডাস্ট ম্যাগাজিনের অন্যতম জনপ্রিয় লেখক ট্রয় রিবেইরো দিব্যা'র মৃত্যুর উপর একটি দীর্ঘ নিবন্ধ লিখেছিলেন। শিরেনাম ছিল 'দ্য ট্র্যাজেডি দ্যা নেশন অব নেশন!' বেশকয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী এবং দিব্যার বন্ধুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দিব্যার মৃত্যু নিয়ে ওই প্রতিবেদনটি লিখেছিলেন রিবেইরো।  

রিবেইরো অবশ্য নিজেই প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন।  তিনি লেখেন, "দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার খবর যাঁরা প্রথম পেয়েছিলেন আমি তাদের মধ্যেই ছিলাম। খবরটা সত্যি কিনা জানতে আমি হাসপাতালে দৌড়েছিলাম এবং যদিও খবরটা সঠিক ছিল। তাও যেন বিশ্বাস করতে পারছিলাম না।''

রিবেইরো লিখেছেন, "আমি যখন দিব্যার দেহ দেখলাম তখনই বুঝেছিলাম বাস্তব ঘটনা থেকে পালাতে পারব না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের রিপোর্টে স্পষ্টভাবে জানানো হয়েছিল যে মৃত্যু হয়েছে উপর থেকে পড়ার কারণে। মাথার খুলি ভাঙ্গা, বামপাশের পায়ের হাড় ভাঙ্গা এবং পাঁজরের হাড়ও ভাঙা ছিল।  রিপোর্টে বলা ছিল রাত দেড়টা থেকে ভোর 8টার মধ্যে দিব্যার মৃত্যু হয়েছে।  দুর্ভাগ্যক্রমে, আমি ঘটে যাওয়া সমস্ত অপ্রীতিকর ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলাম।''

ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন বিদ্যা

বিদ্যার স্বামী বলিউডের খ্যাতনাম পরিচালক এবং প্রোডিউসার সাজিদ নাদিওয়ালার জানান, ১৯৯০ সালে ফিল্মসিটিতে ‘শোলা অউর শবনম’ সিনেমার শুটিং চলাকালে দিব্যার সঙ্গে তার আলাপ হয়েছিল। ওই ছবির নায়ক গোবিন্দার সঙ্গে বন্ধুত্ব ছিল সাজিদের। গোবিন্দার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েই দিব্যার সঙ্গে পরিচয় ঘটে তার। এরপর থেকেই ওই সিনোমার সেটে নিয়মিত যেতে শুরু করেন সাজিদ।  ক্রমশ তার এবং দিব্যার সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠে।

বলিউডের পরিচালক সাজিদ জানান, ১৯৯২ সালের ১৫ জানুয়ারি প্রথমবার দিব্যার পক্ষ থেকে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়া হয়।  ১৯৯২ সালের ২০ মে তার এবং দিব্যার বিয়ে হয়।  বিয়ের আগে নিজের ধর্মও বদলে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন দিব্যা।  যদিও এসবই হয়েছিল অত্যন্ত গোপনে। 

দিব্যার ভবিষ্যত ক্যারিয়ারের কথা ভেবেই সেকথা গোপন রাখার সিদ্ধান্ত নেনে তারা।  এই বিয়ের কথা দিব্যা সবাইকে জানাতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তিনি দিব্যাকে তা করতে বারণ করেন।  এর কিছুদিন পরই তার অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়।  কেউ কেউ ঘটনাটিকে হত্যাকাণ্ড বলেও ধারণা করে।


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ১০৭