২৮ মিনিট আগের আপডেট; রাত ৫:৫১; রবিবার ; ১৩ জুন ২০২১

ইরাকে মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে ফের রকেট হামলা

অনলাইন ডেস্ক: ১০ জুন ২০২১, ১৯:৪১

জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ইরাকের সুরক্ষিত মার্কিন ঘাঁটিতে একাধিকবার রকেট হামলা হয়েছে। ইরাকের মার্কিন সেনা ও ঠিকাদারদের লক্ষ্য করে ফের রকেট হামলা চালানো হয়েছে। তবে বাগদাদের দুই সামরিক ঘাঁটিতে এই হামলার কেউ হতাহত হয়নি।

চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেন শপথ নেওয়ার পর ইরাকের সুরক্ষিত মার্কিন ঘাঁটিতে একাধিকবার রকেট হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসব হামলায় দুই সামরিক ঠিকাদারসহ অন্তত ১০জন নিহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ইরাকের যৌথ অপারেশন কমান্ড এক বিবৃতিতে রকেট ও ড্রোন হামলার তথ্য নিশ্চিত করেছে। বিবৃতিতে বলা হয়, বাগদাদ বিমান বন্দর সংলগ্ন সামরিক ঘাঁটিতে তিনটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন হামলা চালানো হয়। এরমধ্যে একটি মনুষ্যবিহীন ড্রোন ঠেকানো হয় এবং ধ্বংস করা হয়।

এছাড়া বুধবার ইরাকের বালাদ বিমান ঘাঁটির কাছে আরও তিনটি রকেট পড়ে। তবে এসব রকেট হামলায় কোনো হতাহত বা ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এই ঘাঁটিতে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ঠিকাদাররা থাকে।

বালাদ বিমান ঘাঁটিতে যুক্তরাষ্ট্রের স্যালিপোর্ট কোম্পনি কর্তৃক ইরাকের বিমান বাহিনীর সদস্যরা যুদ্ধ বিমান এফ-১৬ উঁড়িয়ে থাকে। এই বিমান ঘাঁটিটি বেশ কয়েকবার রকেট হামলার শিকার হয়েছে। নিরাপত্তা শঙ্কায় গত মাসে আরেক মার্কিন কোম্পানি ‘লকহেড মার্টিন’ এই ঘাঁটি থেকে তাদের স্টাফদের সরিয়ে নেয়।

গত বছর ইরানের জেনারেল কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার পর থেকে ইরাকের মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে প্রায়ই রকেট হামলা চালানো হয়।

২০২০ সালের জানুয়ারিতে বাগদাদ বিমান বন্দরের কাছে এক ড্রোন হামলায় ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ডের এলিট ফোর্স কুদ'সের জেনারেল কাসেম সোলাইমানিসহ বেশ কয়েকজনকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনির পর জেনারেল সোলেইমানিকে ইরানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে মনে করা হতো। কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার পর ইরানের শীর্ষ নেতা খামেনি বলেন, এই হামলার পেছনে থাকা ‘অপরাধীদের বিরুদ্ধে চরম প্রতিশোধ’ নেওয়া হবে।

ইরাকের মার্কিন ঘাঁটিতে রকেট হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইরান সমর্থিত মিলিশিয়াদের দায়ী করে থাকে।


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ৫৩