৬৯০ মিনিট আগের আপডেট; দিন ৪:৫৯; রবিবার ; ২৮ জানুয়ারী ২০২৩

উখিয়ায় আ:লীগ নেতার বাড়িতে চুরির অপবাদে স্কুল ছাত্রদের নির্যাতনের অভিযোগ!

প্রতিনিধি, উখিয়া (কক্সবাজার) ২২ জানুয়ারী ২০২৩, ২০:০১

শিকল চুরির অপবাদে চার স্কুল ছাত্রকে মাথা ন্যাড়া করে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে উখিয়ার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি রফিক উদ্দিন, তার ছেলে রিদুয়ান ও ফোরকানের বিরুদ্ধে।ঘটনাটি শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) রুমখাঁ ক্লাসপাড়া এলাকায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি রফিক উদ্দিনের বাড়িতে ঘটে!

জানা যায়, স্থানীয় হতদরিদ্র রফিকুল ইসলামের ছেলে রুমখাঁ বড়বিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র সাজ্জাদ হোসেন, ছৈয়দ আলমের ছেলে রাকিব সহ আরও দুজন স্কুল পড়ুয়া ছাত্রকে চুরির অপবাদে ধরে নিয়ে তিন ঘন্টা আটকে রেখে মারধর ও চুল ন্যাড়া করে দেওয়া হয়। পরে খবর পেয়ে সন্তানের মা ওই বাড়িতে ছুটে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। সাজ্জাদের পিতা রফিকুল ইসলাম বলেন,"আমি প্রতিদিনের মতো ট্রাক চালক হিসেবে গাড়ি নিয়ে বের হই। পরে ঘটনাটি শুনে বাড়িতে আসলে আমার ছোট বাচ্চা ছেলের পিঠে ব্যাপক মারধরের চিহ্ন দেখতে পেয়ে কারণ জানতে চাইলে পাশ্ববর্তী রিদুয়ানের বাড়িতে চুরির অপবাদ দিয়ে মাথা ন্যাড়া ও মারধরের বিষয়টি জানায় সাজ্জাদ। তাদের আটকে রাখার বিষয়টি জেনে বাচ্চার মা ঐ বাড়িতে গেলে তাকেও ধাক্কা দিয়ে মারধর করে। পরে আহত অবস্থায় তাকে উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।"

এ ঘটনায় গর্ভবতী অবস্থায় আহত সাজ্জাদের মা বলেন,পুরো এলাকায় চুরির খবরটি ছড়িয়ে পড়লে রফিকের বাড়িতে গেলে তার ভাই ও মা সহ কয়েকজন ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়। পরে আমার ছেলেসহ চারজনকে আটকে রেখে মারধর করে চুল ন্যাড়া করে দেয়। বর্তমানে এলাকায় সবাই চোর চোর বলে অপবাদ দিচ্ছে। যার ফলে স্কুলেও যেতে পারছেনা আমাদের ছেলেরা।

সাকিবের মা বেবী আক্তার বলেন,"আমাদের ছেলেরা দোষ করলে মা বাবা আছি। আমাদের না জানিয়ে কার ছেলে কোথায় চুরি করেছে সেটা আমাদের ছেলেদের উপর চাপিয়ে দিয়ে ছোট ছোট শিশুদের এরকম নির্যাতনের সুষ্ঠু বিচার চাই।"

স্থানীয়রা জানায়, রফিক উদ্দিন,তার ছেলে রিদুয়ান, ফোরকান সহ কয়েকজন মিলে ছোট ছোট শিশুদের আটকে রেখে মারধর ও মাথার চুল ন্যাড়া করার খবরটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। অভিভাবকদের না জানিয়ে আইন হাতে নিয়ে এভাবে নির্যাতন পুরো এলাকার মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে। এব্যাপারে হলদিয়া পালং ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিক উদ্দিন মুঠোফোনে জানান,ঘটনাটি মিথ্যা। চোরকে ত মাথা ন্যাড়া করে দিতে হবে। মারধরের বিষয়টি মিথ্যা বলে অস্বীকার করেন তিনি। তবে এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানায় সাজ্জাদের বাবা রফিকুল ইসলাম।