৮৮৯ মিনিট আগের আপডেট; রাত ২:২৪; বৃহস্পতিবার ; ২২ মার্চ ২০২৩

নাটক সাজিয়ে নির্বাচন করতে দেবে না জনগণ : মির্জা ফখরুল

আমার কক্সবাজার ডেস্ক ২৬ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮:২২

বিএনপি আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি বিভাগীয় পর্যায়ে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে। যুগপৎ আন্দোলনের চতুর্থ কর্মসূচি বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে গতকাল বুধবার দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। বিএনপির সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোও একই দিন ওই কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।

গতকাল রাজধানীর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ২৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে’ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি বিক্ষোভ সমাবেশ করে। সেখানে বিএনপি মহাসচিব নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কার্যালয়ের সামনের একপাশের সড়কে ১০ দফা দাবিতে ওই বিক্ষোভ সমাবেশ করে বিএনপি।

সমাবেশে মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, ছদ্মবেশী একদলীয় বাকশাল কায়েম করেছে সরকার। এখন আবার তামাশা ও নাটক সাজিয়ে নির্বাচন করতে চায়। সে নির্বাচন জনগণ এবার হতে দেবে না। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র হত্যা করেছে। তাই এই আওয়ামী লীগকে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরাতে হবে।

বিএনপির কর্মসূচির দিন পাল্টা কর্মসূচি আওয়ামী লীগের রাজপথে থাকার সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, ভয় থেকে ক্ষমতাসীনরা এসব করে। তাদের মধ্যে আস্থার অভাব, ভয় কাজ করে। বিএনপি কর্মসূচি করলে যদি কিছু হয়ে যায়!

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, রাষ্ট্রপতির তো কোনো ক্ষমতা নেই। এ জন্য বিএনপি রাষ্ট্র মেরামতে ২৭ দফা ঘোষণা করেছে, যেখানে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ভারসাম্য রক্ষার কথা বলা হয়েছে।

পাঠ্য বইয়ে বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সঙ্গে সংগতি নেই—এমন ইতিহাস তৈরি করা হয়েছে অভিযোগ করে এসব সংশোধন করার দাবি জানান মির্জা ফখরুল। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগের আর সময় নেই। সময় শেষ হয়ে গেছে। এবার তাদের যেতে হবে। হামলা, মামলা ও নির্যাতনের দায় শোধ করতে তাদের ক্ষমতা ছাড়তে হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালামের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আব্দুল মঈন খান, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, কেন্দ্রীয় নেতা আমানউল্লাহ আমান, শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, শিরিন সুলতানা, রেহানা আক্তার রানু, তাবিথ আউয়াল, ইশরাক হোসেন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এদিন দুপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, কেরানীগঞ্জ থেকে কারামুক্ত হয়ে সরাসরি সমাবেশে যোগ দেন কেন্দ্রীয় নেতা খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন ও শেখ রবিউল ইসলাম।

গণতন্ত্র মঞ্চের কর্মসূচি : কোন্দলের মুখে গত কয়েকটি অনুষ্ঠানে দলের সব নেতা অনুপস্থিত থাকায় সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা। গতকাল সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত যুগপৎ আন্দোলনের কর্মসূচিতে আ স ম রব ছাড়া সব নেতা উপস্থিত ছিলেন। অসুস্থতার কারণে তিনি উপস্থিত হতে পারেননি। মঞ্চের সব নেতাই বলেছেন, গণতন্ত্র মঞ্চ আছে, থাকবে। সমাবেশ থেকে বিএনপির সঙ্গে মিলিয়ে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

এদিকে জামায়াত গতকাল যুগপত্ভাবে কর্মসূচি পালন না করলেও তারা ঘরোয়াভাবে একই কর্মসূচি পালন করেছে। এ ছাড়া যুগপৎ আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী অন্য দলগুলোও গতকাল সমাবেশ করেছে।