৭৭ মিনিট আগের আপডেট; রাত ২:২৩; সোমবার ; ২০ মে ২০২৪

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী গ্রেফতার

আমার কক্সবাজার ডেস্ক : ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ২২:৫৯

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট লুইসে অবস্থিত ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটিতে ইসরায়েলবিরোধী বিক্ষোভ চলছে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে এই বিক্ষোভে যোগ দিয়েছিলেন জিল স্টেইন। যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি বামপন্থি দল গ্রিন পার্টি থেকে জো বাইডেন ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে লড়াই করবেন।

২৮ এপ্রিল, রবিবার নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল শনিবার মার্কিন বামপন্থি নেতা জিল স্টেইনকে ইসরায়েলবিরোধী বিক্ষোভ থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জিল স্টেইনের এক্স অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে তার গ্রেফতারের বিষয়টি দেখা গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৭৩ বছর বয়সী জিল স্টেইনসহ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে সংঘটিত বিক্ষোভ থেকে অন্তত ৮০ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে জিল স্টেইনের প্রচারণা ম্যানেজার জেসন কল এবং সহপ্রচারণা ম্যানেজার ক্যালি মেরিল-কাইকেও গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের আগে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে জিল স্টেইন বলেছিলেন, আমরা এখানে ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দাঁড়িয়েছি। আমরা দাঁড়িয়েছি আমাদের সাংবিধানিক অধিকারের জন্য, দাঁড়িয়েছি আমেরিকার মানুষের জন্য যাঁরা চান- এই গণহত্যা এখনই বন্ধ হোক।

জিলের এক্স অ্যাকাউন্ট থেকে বলা হয়েছে, গ্রেফতার শুরু করার আগে জিল এবং শিক্ষার্থীরা পুলিশকে শান্ত করার চেষ্টা করেছিলেন। জিল স্টেইনের নির্বাচনি প্রচারণা টিমের মুখপাত্র দেশটির সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে বলেছেন, ‌‌আমরা বর্তমানে কোনও অভিযোগ সম্পর্কে জানি না।

গ্রিন পার্টির এই প্রার্থীর যোগাযোগ বিষয়ক পরিচালক ডেভিড শোয়াব বলেছেন, শনিবার বিকেলে ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটিতে বিক্ষোভকারীদের সাথে পুলিশের উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। স্টেইন সেখানে উপস্থিত হয়ে উত্তেজনা প্রশমনের চেষ্টা করেন। কিন্তু পুলিশ বেপরোয়া আচরণ করে। এরপরই সেখানে গ্রেফতার শুরু করে।

তিনি বলেন, জিল স্টেইন বলেছেন, এটা লজ্জাজনক যে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিজ ছাত্রদের বিরুদ্ধে বলপ্রয়োগ করছে; যারা কেবল শান্তি, মানবাধিকার এবং আমেরিকান জনগণের ঘৃণা করা গণহত্যার অবসানের আহ্বান জানাচ্ছে।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও চিকিৎসক জিল স্টেইন ২০১২ এবং ২০১৬ সালে গ্রিন পার্টি থেকে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ছিলেন। গত নভেম্বরে তিনি এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

জানা গেছে, ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে গাজায় যুদ্ধ বন্ধের দাবি ছাড়াও বোয়িং কোম্পানির সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়কে আহ্বান জানানো হয়েছিল।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে- বিক্ষোভকারীদের কথা এবং কাজের মাধ্যমে এটি দ্রুত পরিষ্কার হয়ে গেছে, আমাদের ক্যাম্পাসে তাদের ভালো উদ্দেশ্য ছিল না। এই বিক্ষোভের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার এবং বিপজ্জনক হয়ে ওঠার আশঙ্কা ছিল।