৬৭ মিনিট আগের আপডেট; রাত ৫:৩০; মঙ্গলবার ; ০৪ অগাস্ট ২০২০

খুটাখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকায় নির্মিত হচ্ছে ৪তলা বিশিষ্ট নতুন একাডেমিক ভবন

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া ১৭ জানুয়ারী ২০২০, ২৩:২১

চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ জাফর আলমের সার্বিক সহযোগিতায় কক্সবাজার শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা বরাদ্দে ৪ তলা বিশিষ্ট নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজের সুচনা করা হয়েছে।

শুক্রবার সকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে উপস্থিত হয়ে প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন শেষে মোনাজাতের মাধ্যমে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন।

খুটাখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন খুটাখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জয়নাল আবেদিন মেম্বার, সাধারণ সম্পাদক বাহাদুর হক, খুটাখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.কামাল উদ্দিন, এমপির একান্ত সচিব আমিন চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা ভুট্টো ছাড়াও শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের কর্মকর্তা, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক,  অভিভাবক ও সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন এমপি জাফর আলম

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আলহাজ জাফর আলম এমপি বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাখাতের অগ্রউন্নয়নে পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের জন্য মেধানির্ভর শিক্ষার সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচন করেছে। তাঁর সদিচ্ছার কারনে আজ শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে লেখাপড়া সুযোগ পাচ্ছে।

শিক্ষার সুষ্ট পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দে অবকাঠামোগত উন্নয়নে সব ধরণের কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করছেন। সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশকে নিরক্ষতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করা। সেইলক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছেন। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশে শিক্ষার মান্নোয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার অসাধারণ সাফল্য দেখিয়েছেন। 

তিনি বলেন, বর্তমানে বছরের প্রথমদিন শিক্ষার্থীরা নতুন পাঠ্যবই পাচ্ছে। লেখাপড়া করতে সব ধরণের উপবৃত্তি সুবিধা পাচ্ছে। মেধাবীদের সরকারি চাকুরী নিশ্চিত করা হচ্ছে। দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চালু করা হয়েছে মিড ডে মিল প্রকল্পসহ নানা ধরণের প্রনোদনা প্রকল্প। যাতে শিক্ষার্থীরা এসব সুবিধা নিয়ে সুন্দর পরিবেশে লেখাপড়া করতে পারে। নিজেকে আগামীর জন্য দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে তৈরী করতে পারে। 

জাফর আলম এমপি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান্নোয়ন নিশ্চিতকল্পে আগামী পাঁচবছরে টেকসই উন্নয়নে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার সবশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাজানো হবে। সবাইকে মনে রাখতে হবে লেখাপড়ার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদেরকে সুনাগরিক হিসেবে তৈরী করতে হবে।

আজকের নতুন প্রজন্ম হবে আগামী দিনের দেশ গড়ার কারিগর। তাই সেইভাবে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের তৈরী করতে সবাইকে সচেতনভাবে কাজ করতে হবে। আশাকরি শিক্ষার্থীরা যাতে কোন ভাবে বিপদগামী না হয় সেদিকে অভিভাবক ও শিক্ষক মন্ডলীকে সজাগ ভুমিকা পালন করতে হবে। 

 

 


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ১৩৯