১০৪ মিনিট আগের আপডেট; রাত ৬:০৬; মঙ্গলবার ; ০৪ অগাস্ট ২০২০

কক্সবাজারে করোনার ভয়ংকর রূপ, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে রোগী

চট্টগ্রাম প্রতিদিন ২৩ মে ২০২০, ১৭:৪০

পর্যটন নগরী কক্সবাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাব কক্সবাজার জেলার শহর ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে প্রত্যন্ত গ্রামেও। জেলার দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া ছাড়া সব উপজেলায় শক্তভাবে হানা দিয়েছে করোনা। পাশাপাশি বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে করোনার হানা ভাবিয়ে তুলেছে স্থানীয়দের।

শুক্রবার (২২ মে) পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ জন। আর কক্সবাজারের ৮ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছে ৩১৫ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। যাদের মধ্যে ২১ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীও রয়েছে। সুস্থ হয়েছেন ৫৮ জন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তথ্যনুযায়ী আক্রান্তের মধ্যে বেশিরভাগ রোগী চকরিয়া উপজেলায়। এ পর্যন্ত ১০৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। ৮৮ জন করোনা রোগী নিয়ে এর পরের অবস্থানে কক্সবাজার সদর উপজেলা। এছাড়াও পেকুয়া উপজেলায় ২৯ জন, কুতুবদিয়া উপজেলায় ২ জন, মহেশখালী উপজেলায় ১৮ জন, রামু উপজেলায় ৬ জন, উখিয়া উপজেলায় ৩৭ জন ও টেকনাফ উপজেলায় ৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে।

জানা গেছে, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের করোনা পরীক্ষার ল্যাবে জেলার ৮ উপজেলা ছাড়াও ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা এবং চট্টগ্রামের লোহাগাড়া ও সাতকানিয়া থেকে সন্দেহভাজন রোগীর করোনা নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা করা হয় প্রতিদিন।

এদিকে, সরকারের পক্ষ থেকে সচেতনতা বাড়াতে নানা উদ্যোগ নেয়ার পরও জনগণের উদাসীনতায় সারাদেশের মত কক্সবাজার জেলায়ও করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতনমহল।

কক্সবাজার চেম্বার ও সিভিল সোসাইটির সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরী খোকা বলেন, করোনা যেহেতু একটি ভাইরাসজনিত রোগ সেহেতু শুরু থেকেই এ বিষয়ে সরকার ও প্রশাসন নানা সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়েছে। প্রশাসনের সঙ্গে বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থাসহ সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন সহযোগিতা করেছে। কিন্তু সবকিছু উদাসীনভাবে নিয়েছে সাধারণ মানুষ। ফলে এখন এর কুফল দৃশ্যমান হচ্ছে। লক ডাউনকে তাচ্ছিল্য করায় প্রতিদিন বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া বলেন, কলেজ ল্যাবে দিন দিন সন্দেহভাজন করোনা রোগীর নমুনা সংগ্রহ বাড়ছে। বিশেষ করে কক্সবাজার জেলা ছাড়াও বান্দরবান এবং চট্টগ্রামের সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। যার ফলে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে করোনা পরীক্ষার চাপ বাড়ছে। তারপরও আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান।

কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মাহাবুবুর রহমান জানান, সারাদেশের ন্যায় কক্সবাজারেও করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। শুক্রবার পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ৩১৫ জন।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, সম্প্রতি লকডাউন সীমিত ঘোষণার পর সাধারণ মানুষ অযথা ঘোরাঘুরি করেছে। ফলে কক্সবাজারেও এখন করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এরপরও বলবো, যথাযথ চিকিৎসা প্রয়োগ করার ফলে মৃত্যুর হার কম। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন অর্ধশত রোগী। তবে সচেতনতা ছাড়া করোনার প্রাদুর্ভাব কমানো অসম্ভব নয় তিনি জানান।


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ২৮৭