৬১৬ মিনিট আগের আপডেট; দিন ৭:৫৯; মঙ্গলবার ; ০৬ জুলাই ২০২০

কাশ্মীরে রণসাজ শুরু ভারতের, দু’মাস গ্যাস মজুদের নির্দেশ

অনলাইন ডেস্ক ২৯ জুন ২০২০, ১৯:৪৯

কাশ্মীরে গত বছরের পরিস্থিতি এখনও ঠিক হয়নি। এর মধ্যেই নতুন আরও একটি যুদ্ধের আভাস। লাদাখের সংঘর্ষের পর এবার কাশ্মীরে রণসাজ শুরু করেছে ভারত। ইন্ডিয়া টাইমস জানিয়েছে, জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্থানীয় এলপিজি গ্যাস পরিবেশকদের আগামী দু’মাসের জন্য রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার মজুদ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সামরিক ঘাঁটি গড়তে ১৬টি স্কুল খালি করার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

প্রশাসন বলছে, ভূমিধসের কারণে এলাকার সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হতে পারে। এজন্যই গ্যাস মজুদ করতে বলা হচ্ছে। তবে স্থানীয়রা বলছেন, সরকার যে কারণই দেখাক না কেন, তাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা বলছে, কাশ্মীরে বড় কিছুই ঘটতে চলেছে।

কাশ্মীরের সঙ্গে কারগিলের সংযোগ জেলা গান্ডারওয়াল পুলিশ সুপারের দফতর থেকে জারি করা নির্দেশিকায় ওই এলাকার ১৬টি স্কুল খালি করে দিতে বলা হয়েছে। সেগুলো এখন থেকে নিরাপত্তা রক্ষীদের জন্য ব্যবহার করা হবে।

কাশ্মীরের ডিরেক্টর অব দ্য ফুড, সিভিল সাপ্লাই অ্যান্ড কনজিউমার বিভাগের নির্দেশনায় গ্যাসের সিলিন্ডার মজুদ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যদিও জম্মু-কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নরের উপদেষ্টা ফারুক খান বলেন, আগামী শীতকে সামনে রেখে গ্যাস মজুদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত বছর কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের আগেও এমনই নির্দেশনা জারি করেছিল প্রশাসন। এছাড়া ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের বালাকোটে জঈশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে হামলার আগেও এমন নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল।

ওই সময় হাসপাতালগুলোকে ওষুধ মজুদ রাখা ও ডাক্তার, নার্স, কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছিল। এখন নতুন করে গ্যাস মজুদ ও স্কুল খালির করার নির্দেশনায় আতঙ্ক বিরাজ করছে কাশ্মীরবাসীর মনে। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রক্ষার ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকেই নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্ক।

বারবার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে হামলার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রয়েছে দুই পক্ষেরই। গত সপ্তাহে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর গোলাবর্ষণে ভারত-পাকিস্তান দু’দেশেরই নাগরিকের হতাহতের খবর পাওয়া গেছে।

এই উদ্বেগ নিয়ে সরব হয়েছেন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাও। তার বক্তব্য, ‘সরকারি নির্দেশে কাশ্মীরে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। গত বছরে আমাদের এত মিথ্যা বলা হয়েছে যে সরকারি ব্যাখ্যা বিশ্বাস করাও কঠিন। তবে তা সত্ত্বেও সরকারকে ব্যাখ্যা দিতে হবে।’


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ৫৩